দেশ

দেশ

ঠাকুগাঁওয়ে প্রচণ্ড গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন

ঠাকুরগাঁওয়ে গত কয়েক দিনের তীব্র তাপপ্রবাহের কারণে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। প্রচণ্ড গরমে মানুষের হাঁসফাঁস অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। কাঠফাটা রোদে ও তীব্র গরমে নিতান্তই প্রয়োজন ব্যতিরেকে কেউই বাসার বাইরে বের হচ্ছেন না। অফিস-আদালত, বাসাবাড়ি কোথাও একটু খানিও স্বস্তি মিলছে না। আজ (বৃহস্পতিবার ) ঠাকুরগাঁওয়ে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

গতকালও প্রচণ্ড গরম ও তীব্র রোদের কারণে দুরামারি বাণিজ্যিক ও শিল্প প্রধান এ শহরের রাস্তায় মানুষজনের চলাচল ছিল একেবারের কম। আর দিনমজুর, রিক্সা, রিক্সাভ্যান চালক, ব্যাটারিচালিত অটো রিক্সা চালকদের অবস্থা আরও কাহিল। রিক্সা চালকেরা দুই-একটি ভাড়া ফেলেই ছায়ার খোঁজে গাছতলায় কিংবা হোটেল রেস্তোরাঁয় গিয়ে বসে বিশ্রাম নেন।

কাঠফাটা রোদে ও প্রচনণ্ড গরমে শহরের মানুষের উপস্থিতি কম থাকায় রিক্সা, রিক্সা ভ্যান, ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা কিংবা পাগলুতে যাত্রী সংখ্যা তেমন একটা নেই বললেই চলে।

শহরের প্রবীণ রিক্সাচালক আনোয়ার হোসেন বলেন, গত কয়েক দিন থেকে প্রচণ্ড গরমের কারণে দিনের বেলা রিক্সা চালাতে পারি না। তাছাড়াও তীব্র তাপদাহে ও গরমের কারণে দিনের বেলা শহরে লোকজনের চলাচলও তেমন নেই। তাই গত কয়েক দিনে আয়-রোজগার অনেক কম হচ্ছে। এখন প্রতিদিন যে আয় হচ্ছে, তা দিয়ে সংসারের খরচ বহন করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।

এছাড়া বর্তমানে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও আকাশচুম্বী। প্রতিদিনের যৎসামান্য উপার্জন দিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তিনি বলেন, এমন তীব্র তাপপ্রবাহ আমার ৬৫ বছরের জীবনে কোনদিনও দেখিনি। সামনে আরও নাকি তাপমাত্রা বাড়বে বলে শুনছি। তখন আমাদের মতো দিনে আনে দিন খাওয়া মানুষদের অবস্থা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে বুঝতে পারছি না। একমাত্র সৃষ্টিকর্তাই পারেন এমন অবস্থা থেকে আমাদের রক্ষা করতে।

এদিকে, তীব্র গরম ও প্রচণ্ড তাপদাহে মানুষজন অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। বিশেষ করে বয়স্ক মানুষ ও শিশুদের অবস্থা সবচেয়ে বেশি কাহিল। এতে করে প্রতিদিন স্থানীয় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের বর্হিবিভাগে ও আন্তঃবিভাগে অসুস্থ মানুষের ভীড় বাড়ছে। অসুস্থ মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিতে হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসরা হিমশিম খাচ্ছেন। এছাড়া নানা রোগে আক্রান্ত রোগীরা শহরের বিভিন্ন চিকিৎসকদের চেম্বারে গিয়েও চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করছেন।

আজ ঠাকুরগাঁওয়ে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত এক সপ্তাহে এটিই এখানকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। এর আগে এখানে সর্বোচ্চ ৩৬ ডিগ্রি সেলিসিয়াস থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রা উঠানামা করেছে।

বিষয়:
পরবর্তী খবর

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে দিনভর নানান কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। রবিবার সকালে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য শুরু হয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান। পরে নেতাকর্মীরা শহরের বঙ্গবন্ধু মঞ্চে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান।

বিকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি কলেজে শহীদ মিনার চত্বরে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মুঃ জিয়াউর রহমানের সভাপতিত্বে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন– জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নারী সংসদ সদস্য জারা জাবীন মাহবুবসহ অনান্যরা।

পরে নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে শহরে বিশাল শোভাযাত্রা বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক ঘুরে আবারও অনুষ্ঠান স্থলে এসে শেষ হয়। শেষে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনের এ আয়োজনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা ছাড়াও জেলার অনান্য উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এসে যোগ দেয়। এতে শহর জুড়েই যেন ছিলো উৎসব।

পরবর্তী খবর

‘সবার জন্য শিল্পচর্চা’ স্লোগানে রঙের ভাষা শিল্পচর্চা কেন্দ্রের যাত্রা শুরু

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার ঝিলিম ইউনিয়নের ফিল্টিপাড়ায় কোল ক্ষুদ্র জাতিসত্তার পরিবারের শিক্ষার্থীদের সম্পূর্ণ বিনাবেতনে শিল্পচর্চা চালু করলো রঙের ভাষা শিল্পচর্চা কেন্দ্র। শনিবার বিকেলে রঙের ভাষা শিল্পচর্চা কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

ঝিলিম ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফুল হাসানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলা সাংস্কৃতিক কর্মকর্তা ফারুকুর রহমান, প্রথম আলো স্টাফ রিপোর্টার আনোয়ার হোসেন দিলু, জেলা স্কাউটসের সহকারী কমিশনার আশরাফুল আম্বিয়া, সম্পাদক গোলাম রশীদ, জজ কোর্টের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ভব সুন্দর পাল, কোলদের নারী নেত্রী কল্পনা মুরমু, কবি ইহান অরভিন, আনিফ রুবেদ, ইউপি সদস্য শরিয়ত আলী, সুশান্ত সাহা, ইউপি সচিব মৃণাল কান্তি পাল, চারুশিল্পী সমর সাহা, শিক্ষক ও বাদ্যশিল্পী রাজকুমার দাস, সমাজসেবক স্বপন কুমার ঘোষ প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য দেন রঙের ভাষা আর্ট এন্ড ডিজাইন স্কুলের পরিচালক জগন্নাথ সাহা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন স্কুল শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম।

বক্তারা বলেন, পিছিয়ে পড়া ক্ষুদ্রজাতিসত্তার শিশুদের এগিয়ে নেওয়ার জন্য রঙের ভাষা শিল্পচর্চা কেন্দ্র কাজ করবে। সামর্থ্য অনুযায়ী এ শিল্প চর্চা কেন্দ্রের পাশে থাকার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন বক্তারা।

এ কেন্দ্রের পরিচালক জগন্নাথ সাহা বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ের ১৫ জন ও মাধ্যমিক পর্যাযের ১৫ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে যাত্রা শুরু করবে রঙের ভাষা শিল্পচর্চা কেন্দ্র। এখানে চিত্রাঙ্কনসহ কুটির শিল্প বিষয়ক শিক্ষা দেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত