দেশ

দেশ

সাতক্ষীরায় লাল বাহিনীর কবলে প্রাণ হারালো ৮ মাসের শিশু 

সাতক্ষীরায় লাল বাহিনীর কবলে পড়ে প্রাণ হারাতে হয়েছে প্রীতম সানা নামের এক ৮ মাসের শিশু সন্তানের।

গত বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কের চাঁদপুর সংলগ্ন জনৈক সাত্তারের মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আট মাস বয়সী প্রীতম সানা আশাশুনি উপজেলার আরার দাসপাড়া এলাকার বিকাশ সানার ছেলে। এঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে ওই এলাকায়।

জানা যায়, গত ১৮ জানুয়ারি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু প্রীতম সানাকে নিয়ে আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা থেকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজে যাচ্ছিলেন তার স্বজনরা। এসময় লাল বাহিনী তাদের গতিরোধ করে। ইজিবাইকে করে সাতক্ষীরা শহরে যাওয়া যাবে না জানিয়ে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেওয়া হয় শিশুটিসহ তার পরিবারের সদস্যদের। এসময় প্রীতম সানার অসুস্থতার কথা বললেও মন গলেনি লাল বাহিনীর সদস্যদের। একপর্যায়ে এই সড়ক দিয়ে যেতে হলে চাঁদা দেওয়ার কথা বলেন লাল বাহিনীর সদস্যরা৷ তবে ওইসময় বাড়তি কোন অর্থ না থাকাতে চাঁদার টাকা দিতে ব্যর্থ হন পরিবারটি। উপায় না পেয়ে উল্টোপথে ২০ কিলোমিটার ঘুরে সাতক্ষীরা মেডিকেলে শিশুটিকে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানা যায়, বিগত কয়েক বছর ধরে সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কের চাঁদপুরের সাত্তারের মোড়সহ বেশ কিছু জায়গাতে থ্রি-হুইলার গাড়ি দাঁড় করিয়ে টাকা দাবি করে কিছু লোকজন। স্থানীয়দের কাছে তারা লাল বাহিনী নামে পরিচিত। এদের কাছে লাল রঙের ছোট ছোট পতাকা থাকে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, এই লাল বাহিনীকে নিয়ন্ত্রণ করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।

বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সদর উপজেলার ধুলিহর ইউনিয়নে মো. মিজানুর রহমান চৌধুরী চেয়ারম্যান হিসেবে জয়লাভ করার পর থেকে তার নেতৃত্বে গড়ে ওঠে লাল বাহিনী। বর্তমানে সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কে চেয়ারম্যান মিজান চৌধুরীর বাস যাতায়াত করাতে এই সড়ক দিয়ে তিন চাকার থ্রি-হুইলার (ইজিবাইক, মহেন্দ্র, গ্রাম বাংলা) চলাচল করতে দেন না তিনি। যারা এই সড়ক দিয়ে থ্রি-হুইলার চালান তাদেরকে প্রথমে আটকে দেওয়া হয়। এসময় যদি কোন বাস সেখানে থাকে তাহলে তাদের যাত্রীগুলো নামিয়ে ওই বাসে তুলে দেয় লাল বাহিনীর লোকজন। অন্যথায় টাকা দিলে থ্রি-হুইলার গাড়িগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়।

সরেজমিনে নিহত প্রীতম সানার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, একমাত্র শিশু সন্তানকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন শিশুটির পিতামাতা। শোকের ছায়া নেমে এসেছে গোটা এলাকা। প্রীতম সানার বাড়িতে শত শত মানুষের ভীড় থাকলেও তাদের কান্নার আহাজারিতে ভেঙে পড়ছেন উপস্থিতিরাও।

শিশুটির মা বন্দনা সানা, বাবা বিকাশ সানা, দাদি অঞ্জলী সানা জানান, ‘ঘটনার কয়েকদিন আগে থেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয় প্রীতম সানা। তবে অর্থ-অভাবে হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হয়নি। একপর্যায়ে ওইদিন প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় অল্পকিছু টাকা নিয়ে ইজিবাইকে করে সাতক্ষীরা মেডিকেলের উদ্দেশ্যে বের হয়েছিলাম। পথিমধ্যে চাঁদপুরের সাত্তারের মোড়ে পৌঁছানো মাত্র লাল বাহিনীর সদস্যরা আমাদের ঘিরে ধরে। তারা আমাদের বহনকৃত ইজিবাইক থেকে আমাদের নামিয়ে দেয় এবং বাসে করে সাতক্ষীরা যেতে বলে।’

তারা বলেন, ‘আমরা তাদেরকে (লাল বাহিনী) প্রীতমের অসুস্থতার কথা বললেও তাদের মন গলেনি৷ বরং অকথ্য ভাষা ব্যবহার করতে থাকে আমাদের সাথে। একপর্যায়ে তারা চাঁদার টাকা দাবি করে। তবে প্রীতমের চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় টাকা ছিল না বিধায় আমরা চাঁদার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করি। এজন্য তারা আমাদের উল্টো পথে ২০ কিলোমিটার ঘুরে সাতক্ষীরা মেডিকেলে আসতে বাধ্য করে। এসময় মেডিকেলে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রীতম সানাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

এসময় অশ্রুসিক্ত নয়নে তারা বলেন, ‘মিনিট ত্রিশ আগে প্রীতমকে হাসপাতালে নিতে পারলে সে বেঁচে থাকতো। এমনটাই ডাক্তার আমাদেরকে বলেছেন। আজ যদি লাল বাহিনী বাধা না দিতো তাহলে হয়তো প্রীতম বেঁচে থাকতো’ জানিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তারা। আর এঘটনার সুষ্ঠু বিচার এবং আর যাতে কাউকে লাল বাহিনীর কবলে পড়ে প্রাণ হারাতে না হয় সেজন্য সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন প্রীতম সানার পরিবারের সদস্যরা।

এই সড়কে শুধু ৮ মাসের শিশু প্রীতম সানাই নয়, লাল বাহিনীর অত্যাচারের বলি হয়েছেন আরও অনেকে।

আরার দাসপাড়া এলাকার স্থানীয় লীলা রানী দাস অভিযোগ করে বলেন, গতবছর তার পুত্রবধূকেও সন্তান জন্মদানের আগে তাদের বহনকারী ইজিবাইকটিকে বাধা দিয়েছিলো মিজান চৌধুরীর এই লাল বাহিনী। হাসপাতালে দেরিতে পৌঁছানোর পর আল্ট্রাসনোগ্রামে দেখা যায় তার দুটি সন্তানের একটি মারা গেছে। তার দাবি, ‘লাল বাহিনীর কবলে পড়ে এমন ঘটনা অহরহ ঘটছে। তবে মিজান চৌধুরীর ভয়ে তার বাহিনীর বিরুদ্ধে কথা বলতে ভয় পান সবাই।’

এই সড়কে চলাচলকারী একাধিক থ্রি-হুইলার গাড়ির চালকরা বলেন, সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কে এক আতঙ্কের নাম লাল বাহিনী। যে বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে চেয়ারম্যান মিজান চৌধুরী। এই রোডে তার চলাচলকৃত বাসের ভাড়া কম হবে বিধায় গুরুত্বপূর্ণ এই সড়ক দিয়ে কোন থ্রি-হুইলার গাড়ি চলাচল করতে দেন না তিনি। এজন্য তিনি এই সড়কের কয়েক স্তরে লাল বাহিনীর চেকপোস্ট বসান। যে চেক পোস্টে যাত্রী নামিয়ে নেয়াসহ চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটে৷

তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মিজান চৌধুরী ক্ষমতাশালী হওয়াতে তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলেন না। যখনই তার এ সমস্ত কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করা হয় তখন তিনি তার ক্ষমতা বলে তাদেরকে নানাভাবে হয়রানী করেন। এজন্য গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কে লাল বাহিনীর কবলে পড়ে আর যাতে কারও প্রাণহানি না ঘটে সেজন্য সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ মতিউর রহমান সিদ্দিকী বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কিছুদিন আগে সাতক্ষীরাতে যোগদান করেছি। এজন্য লাল বাহিনী সম্পর্কে অবগত নই। এধরনের ঘটনা অপ্রত্যাশিত। মানবিক দিক থেকে অসুস্থ মানুষের সেবায় সবার উচিত তাদের পাশে দাঁড়ানো। তবে এ ঘটনা সর্বোচ্চ আমলে নিয়ে জেলা পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তিনি আশ্বত করেন, সাতক্ষীরা সড়কে কোন বাহিনী থাকবে না। সড়ক ব্যবস্থাকে নিরাপদ করতে পুলিশ সর্বোচ্চ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

বিষয়:
পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে ১০০ বোতল ফেনসিডিল আটক

ঠাকুরগাঁওয়ে ১০০ বোতল ফেনসিডিলসহ ১ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ৮টায় সদর উপজেলার খোঁচাবাড়ী বাজার হতে নারায়ণগঞ্জগামী যাত্রীবাহী বাস বন্ধু এক্সপ্রেস নামক কোচ থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। আটককৃত মোঃ দুলাল হাসান (১৬) বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের কলন্দা পশ্চিম পাড়া গ্রামের মোঃ শাহিনুর ইসলামের ছেলে। এই ঘটনায় একই ইউনিয়নের ভানোর আম পাথারী এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মোঃ কামাল হোসেন (৩৫) পলাতক রয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এবিএম ফিরোজ ওয়াহিদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এস‌আই (নি‍ঃ) আব্দুস সোবাহান ওই এলাকায় মাদকদ্রব্য অভিযান পরিচালনা করে ১০০ বোতল ফেনসিডিলসহ একটি অপ্রাপ্ত বয়স্ক শিশুকে আটক করে। মাদক ব্যবসায়ীরা অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশুকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ভারতীয় ফেনসিডিল সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে তা বিক্রি করছে। আটককৃত কিশোরের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সাথে পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হবে।

পরবর্তী খবর

বাঘায় দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানে জনসংযোগ বিষয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত

রাজশাহীর বাঘায় দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সাথে জনসংযোগ সংক্রান্ত সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১১জুন) সকাল ১১টায় উপজেলা প্রশাসন ও জেলা কর্মসংস্থান এবং জনশক্তি অফিসের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ইমরান হোসেনের সঞ্চালনায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস রাজশাহী’র সহকারী পরিচালক আখতার-উজ-জামান।

কর্মসংস্থান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখনও বাংলাদেশে অনেক মানুষ বেকার। আচ্ছা আপনারা কেউ বলবেন এই ব্যর্থতার দায় কি সরকারের? না; এই ব্যর্থতা সরকারের নয়, এই ব্যর্থতা আমাদের সকলের। কারণ আমরা নিজেদেরকে দক্ষ কর্মী হিসেবে তৈরি করতে পারি না। শুধুমাত্র আমরা পড়াশুনা এবং চাকরির পেছনে ছুটি।

সেমিনারে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি, দক্ষতা উন্নয়ন এবং অভিবাসী কর্মীদের অধিকতর কল্যাণ ও নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করে তিনি আরও বলেন, বৈধ পথে বিদেশ যাওয়া এবং যাওয়ার আগে সকল কাগজপত্র চেক করা, মেডিকেল চেকআপ করতে হবে। যারা বৈধভাবে বিদেশে কর্মরত আছেন, তাদের পরিবারে প্রতিবন্ধী কোন শিশু থাকলে তাদের জন্য আলাদা ভাতা এবং শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা ভাতা চালু করেছে সরকার। এমনকি বিদেশে গিয়ে মৃত্যুবরণ কিংবা কাজ না পেয়ে দেশে ফিরে আসা ব্যক্তিদের জন্য ক্ষতিপূরণসহ বিভিন্ন সেবা চালু রেখেছে সরকার।

দেশের সকলকেই তো চাকরি দেওয়া সম্ভব নয়। সুতরাং চাকরির পিছনে না ছুটে আমরা নিজেদেরকে নিজেরা বিভিন্ন কাজে দক্ষ হিসেবে তৈরি করে তুলি। তাহলেই এদেশে বেকারত্ব দূর হবে এবং সমাজে যত সমস্যা রয়েছে সব সমাধান হতে পারে।

সমাপনী বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরিকুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের আয়ের অন্যতম উৎস বৈদেশিক রেমিট্যান্স। বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে অনেকেই যে ভুলটা করেন, তা হলো দক্ষ না হয়ে বিদেশ যাত্রা। আবার অনেকেই আছেন, যারা সঠিকভাবে বৈধ পন্থায় না গিয়ে দালালদের মাধ্যমে বিদেশে যান। এক্ষেত্রে তারা নিজেদের ক্ষতির পাশাপাশি সরকারকেও ক্ষতিগ্রস্ত করে। তাই যারা বিদেশে যেতে চান, তারা যেন অবশ্যই বৈধ পন্থায় সরকার কর্তৃক নিবন্ধিত এজেন্সির মাধ্যমে যান। এখানে যারা উপস্থিত আছেন প্রত্যেকের প্রতি আমি বিনীত অনুরোধ করবো প্রত্যেকেই নিজ নিজ দায়িত্ববোধ থেকে সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সরকার কর্তৃক বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান হতে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে, নিজেকে যোগ্য করে গড়ে বিদেশ গমনে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। তবেই আমাদের সফলতা আসবে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাঘা উপজেলা পুঁজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুজিত কুমার পান্ডে বাকু, সাধারণ সম্পাদক অপূর্ব কুমার সাহা, রহমতুল্লাহ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবুল ইসলাম, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং বিভিন্ন পেশায় কর্মজীবীগণ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত