দেশ, নির্বাচিত, লিড নিউজ

দেশ, নির্বাচিত, লিড নিউজ

ভুমিদস্যুদের ইন্ধনে আবারও শুরু হয়েছে ফসলি জমির মাটি কাটার মহোৎসব 

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার নদী ও খাল সংলগ্ন কয়েকটি মৌজায় ফসলি জমির মাটি কাটার মহোৎসব চলছে। আইন অমান্য করে অবাধে ফসলী জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রির অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ভূমিদস্যদের বিরুদ্ধে। এতে পরিবেশ বিপর্যয়সহ কমে যাচ্ছে এলাকার ফসলি জমির পরিমাণ। রোজকার খবরের সরেজমিন অনুসন্ধানে উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামকৃষ্ঞদি, ভাসানচর, নতুনচরসহ পার্শ্ববর্তী কয়েকটি এলাকায় গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া যায়।

ভুক্তভোগি এলাকাবাসী জানান, প্রতিবছর যেসব জমিতে গোল আলু, সরিষা, গম, ধানসহ বিভিন্ন জাতের ফসলের চাষ হত, এলাকার কিছু চিহ্নিত ভূমিদস্যু গত ৩/৪ বছর যাবৎ উপজেলার রামকৃষ্ঞদি, ভাসানচর, নতুনচর মৌজাসহ আশেপাশে এলাকার সেইসব ফসলি কৃষি জমির মাটি ইট ভাটায় বিক্রি করছে। তাদের বক্তব্য হচ্ছে, তারা জমি কিনে তারপর কেনা জমির মাটি কাটে। তাছাড়া অনেকে আবার জমি বিক্রি না করে শুধু জমির মাটি বিক্রি করে। বিক্রিত মাটি ভেকু মেশিন দিয়ে জমিতে ২০-২৫ ফুট গভীর গর্ত করে এমন খাড়াভাবে কেটে নেয় যাতে অল্প কয়েকদিনের মধ্যে পার্শ্ববতী জমির মাটি ভেঙে পড়ে। ফলে ওই জমিও আর ফসল ফলানোর উপযোগী থাকে না। তখন দালালের মাধ্যমে ভেঙ্গে পড়া জমির মালিককে তাদের কাছে মাটি বিক্রি করতে বাধ্য করা হয়। এভাবে পর্যাক্রমে একের পর এক ফসলি জমি চলে যাচ্ছে মাটিখেকো ভুমি দস্যুদের কব্জায়। বেকার হচ্ছেন কৃষকরা। পরিবেশের মারাত্মক বিপর্যয়ের ফলে হুমকির মুখে পড়েছেন উপজেলার এইসব প্রায় ৩ লক্ষাধিক মানুষের জীবন।

এ ব্যাপারে লতব্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফেজ মোঃ ফজলুল হকের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি রোজকার খবরের স্থানীয় প্রতিনিধির কাছে তার অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমরা আমাদের এলাকার ফসলি জমির মাটি রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নিতে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে বার বার মৌখিক ও লিখিত আবেদন জানিয়েছি। স্থানীয় ইটভাটার মালিক ও গণ্যমান্য সবাইকে নিয়ে মিটিং করেছি। এমনকি, এই বিষয়টা জাতীয় পর্যায়ে তুলে ধরার লক্ষ্যে ভুক্তভোগীদের নিয়ে গতবছর ঢাকায় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনও করেছি। কিন্তু, দুঃখজনকভাবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত আমার এলাকার ফসলি জমির মাটি রক্ষায় কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। জনদাবির প্রেক্ষিতে সাধারণ ভুক্তভোগীর পক্ষ নিয়ে ফসলি জমির মাটি রক্ষায় তৎপর থাকায় তিনি নিজেই এখন জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শংকায় ভুগছেন বলে এই প্রতিবেদকের কাছে জানান।

কৃষি জমির মাটি কাটলে ভুমির শ্রেণি পরিবর্তন হয়। সরকারি আইন অনুযায়ী ভূমির শ্রেণি পরিবর্তন করতে হলে ভূমি মালিককে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আবেদন করতে হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পরিদর্শনের পর প্রয়োজনীয় সুপারিশ করবেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অনুমোদন দেবেন। কোন কোন ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকও এ অনুমতি সরাসরি দেন। তবে এর কোনটারই তোয়াক্কা করছেন না উল্লেখিত এলাকার ভূমিখেকোরা।

উল্লেখ্য, মাটির ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও হ্রাসকরণ ২০১৩ সালের ৫৯ নং আইনের ৫ ধারায় স্পষ্ট উল্লেখ আছে, ‘কোন ব্যক্তি ইট প্রস্তত করিবার উদ্দেশ্য কৃষি জমি হইতে মাটি কাটিয়া বা সংগ্রহ করিয়া ইটের কাঁচামাল হিসাবে ব্যবহার করিতে পারিবেন না। যদি কোন ব্যক্তি আইনের এই ধারা লঙ্ঘন করেন তাহা হইলে তিনি অনধিক ২ (দুই) বৎসরের কারাদণ্ড বা ২ (দুই) লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন। আবার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক নির্মিত বা ইউনিয়ন বা গ্রামীণ সড়ক ব্যবহার করিয়া কোন ব্যক্তি ভারি যানবাহন দ্বারা ইট বা ইটের কাঁচামাল পরিবহন করিতে পারিবেন না। যদি কোন ব্যক্তি আইনের এই ধারা লঙ্ঘন করেন তাহা হইলে তিনি অনধিক ১ (এক) লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’ এতসব আইন থাকার পরও ভূমিদস্যুরা আইনের তোয়াক্কা না করে স্থানীয় প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে কিংবা ম্যানেজ করে এই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এ ব্যাপারে উপজেলার লতব্দী ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আবু সালেক জানান, ‘ফসলি জমির মাটি কাটার বিষয়টি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে অবহিত করেছি।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সাঈদ শুভ্র জানান, ‘কৃষি জমির মাটি কাটার ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের পাশাপাশি ফসলি জমির উর্বরা শক্তি আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পায়। দেশে কৃষি জমির পরিমাণ কমে যায় এবং বেকার হচ্ছে কৃষক। মাটি কাটার বিষয়টি আমি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করব।’

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মুজাহিদুল ইসলাম জানান, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি, তবে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’


উল্লেখ্য, ভারি বাহনে মাটি পরিবহনের ফলে মারাত্নক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে জনসাধারনের চলাচলের রাস্তা। কেটে নেয়া মাটিসহ ভারি ট্রাক বা ট্রলিতে ভর্তি করে জোর করে অন্যের জমির উপর দিয়ে এবং স্থানীয় ইউনিয়ন ও গ্রামীণ সড়ক দিয়ে নেয়া হচ্ছে ইট ভাটায়। মাটি ভর্তি ট্রাক কিংবা ট্রলিগুলো সড়ক দিয়ে পরিবহনের ফলে রাস্তাগুলোর অবস্থা খুবই নাজুক। সাধারণ যানবাহন ও জনসাধারণের চলাচলেও খুবই অসুবিধার সৃষ্টি হচ্ছে। তাছাড়া, দিনরাত মাটি কাটার মেশিন (ভেকু) ও মাটি টানার ট্রলির বিকট শব্দে এলাকাবাসীর স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে। এ ঘটনায় বর্তমানে এলাকায় চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।

বিষয়:
পরবর্তী খবর

উদ্যোক্তাদের ‘দক্ষতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ’ দিচ্ছে এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশ

এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশের আয়োজনে রাজধানীর টিকাটুলীতে অবস্থিত এফবিসিসিআই ইনোভেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার মিলনায়তনে শুরু হয়েছে দুই দিন ব্যাপী ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্যোক্তাদের জন্যে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ঋণ প্রস্তুতি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ।

বুধবার (১২ জুন) সকালে শুরু হওয়া এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে প্রথম ব্যাচে ২৫ জন উদ্যোক্তাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে। প্রথম দিন উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই ইনোভেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিকর্ণ কুমার ঘোষ।

প্রধান অতিথি তাঁর উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হলে তাঁদের স্বপ্নটাকে বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। তাঁদের স্বপ্ন ছিল একটা সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। সেই লক্ষ্যে অসম্ভবকে সম্ভব করার সাহসীকতা নিয়ে কাজ করতে হবে। উদ্যোক্তাদের সেই সাহস আছে। তাদের সাহস, আত্মবিশ্বাস এবং প্রস্তুতি পারে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে। তিনি বলেন, যারা উদ্যোক্তা তারা ঝুঁকি নিতে জানে। ঝুঁকি নেওয়া ছাড়া বড় পরিবর্তন সম্ভব না। তাই চাকরিজীবীদের দিয়ে যে অগ্রগতি সম্ভব না, উদ্যোক্তাদের দিয়ে তা সম্ভব। বিকর্ণ কুমার ঘোষ উদ্যোক্তাদের যেকোনো প্রয়োজনে পাশে থাকার প্রত্যয় ঘোষণা দেন।

প্রথম দিনের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন নিজের বলার মতো একটা গল্প ফাউন্ডেশনের মডারেটর ও ঢাকা জেলা এম্বাসাডর হোসাইন আল মামুন এবং টার্টেল ভেঞ্চারের মেহেনাজ জামান।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্যোক্তাদের জন্যে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ঋণ প্রস্তুতি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ কার্যক্রম তারা নিয়মিত পরিচালনা করবেন। প্রথম ব্যাচে এবার বাছাইকৃত পঁচিশজন উদ্যোক্তাকে সুযোগ দিতে পেরেছেন। ভবিষ্যতে আরও বেশি সংখ্যক উদ্যোক্তাকে এই প্রশিক্ষণের আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে। তাদের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়েছে, উদ্যোক্তাদের জন্য বিনিয়োগ এবং লোন সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে সহজ করতে তারা কাজ করছেন।

এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশের এই আয়োজনে পার্টনার হিসেবে রয়েছে নিজের বলার মতো একটা গল্প ফাউন্ডেশন, টার্টেল ভেঞ্চার এবং দ্রুত লোন। আগামীকাল প্রথম ব্যাচের এই প্রশিক্ষণ শেষ হবে।

পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে ১০০ বোতল ফেনসিডিল আটক

ঠাকুরগাঁওয়ে ১০০ বোতল ফেনসিডিলসহ ১ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ৮টায় সদর উপজেলার খোঁচাবাড়ী বাজার হতে নারায়ণগঞ্জগামী যাত্রীবাহী বাস বন্ধু এক্সপ্রেস নামক কোচ থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। আটককৃত মোঃ দুলাল হাসান (১৬) বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের কলন্দা পশ্চিম পাড়া গ্রামের মোঃ শাহিনুর ইসলামের ছেলে। এই ঘটনায় একই ইউনিয়নের ভানোর আম পাথারী এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মোঃ কামাল হোসেন (৩৫) পলাতক রয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এবিএম ফিরোজ ওয়াহিদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এস‌আই (নি‍ঃ) আব্দুস সোবাহান ওই এলাকায় মাদকদ্রব্য অভিযান পরিচালনা করে ১০০ বোতল ফেনসিডিলসহ একটি অপ্রাপ্ত বয়স্ক শিশুকে আটক করে। মাদক ব্যবসায়ীরা অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশুকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ভারতীয় ফেনসিডিল সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে তা বিক্রি করছে। আটককৃত কিশোরের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সাথে পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত