অর্থ ও বাণিজ্য

অর্থ ও বাণিজ্য

যেসব সেবা গ্রহণে রিটার্নের প্রমাণপত্র বাধ্যতামূলক

এখন শুধু ট্যাক্সপেয়ার আইডেনটিফিকেশন নাম্বার বা টিআইএন থাকলে হবে না, সরকারি বিভিন্ন সেবা নিতে আয়কর রিটার্ন জমার প্রমাণপত্র লাগবে। তাই যাদের টিআইএন আছে, তারা এখনই রিটার্ন জমার প্রস্তুতি নিন। কারণ, গত ১ জুলাই ২০২৩ থেকে ৪৩টি সেবার ক্ষেত্রে রিটার্ন জমার প্রমাণপত্র বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। 

রিটার্নের প্রমাণপত্র কোনটি?

এনবিআরের পক্ষ থেকে রিটার্নপ্রাপ্তি স্বীকারপত্র; বা করদাতার নাম, টিআইএন বা করবর্ষ–সংবলিত সিস্টেম জেনারেটেড সার্টিফিকেট বা সনদ বা করদাতার নাম, টিআইএন বা করবর্ষ–সংবলিত উপ–কর কমিশনারের ইস্যু করা প্রত্যয়নপত্র।

যে ৪৩টি সেবা গ্রহণে রিটার্নের প্রমাণপত্র বাধ্যতামূলক

১. করারোপযোগ্য আয় না থাকার পরও ২০ লাখ টাকার বেশি ঋণ গ্রহণে;
২. কোনো কোম্পানির পরিচালক বা উদ্যোক্তা শেয়ারধারী হতে গেলে;
৩. আমদানি বা রপ্তানি নিবন্ধন সনদপ্রাপ্তি ও বহাল রাখতে;
৪. সিটি করপোরেশন বা পৌর এলাকায় ট্রেড লাইসেন্সপ্রাপ্তি ও নবায়নে;
৫. সমবায় সমিতির নিবন্ধন নিতে;
৬. সাধারণ বিমার তালিকাভুক্ত সার্ভেয়ার হতে এবং লাইসেন্সপ্রাপ্তি ও নবায়নে;
৭. সিটি করপোরেশন, পৌরসভা ও ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকায় ১০ লাখ টাকার জমি, ভবন বা অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি বা লিজ বা হস্তান্তর বা বায়নানামা বা আমমোক্তারনামা নিবন্ধনে;
৮. ক্রেডিট কার্ডপ্রাপ্তি ও বহালে;
৯. চিকিৎসক, দন্তচিকিৎসক, আইনজীবী, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট, কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্ট, প্রকৌশলী, স্থপতি অথবা সার্ভেয়ার বা সমজাতীয় পেশাজীবী হিসেবে স্বীকৃত পেশাজীবী সংস্থার সদস্যপদপ্রাপ্তি ও বহাল রাখতে;
১০. মুসলিম বিবাহ–সংশ্লিষ্ট আইনের অধীনে নিকাহ রেজিস্ট্রার, হিন্দু বিবাহ নিবন্ধন আইনের অধীনে হিন্দু বিবাহ নিবন্ধক ও বিশেষ বিবাহ আইনের অধীনে রেজিস্ট্রার হিসেবে সনদপ্রাপ্তি বা নিয়োগ বহাল রাখতে;
১১. ট্রেড বডি বা পেশাজীবী সংস্থার সদস্যপদপ্রাপ্তি ও বহালে;
১২. ওষুধ বা ড্রাগ সনদ, ফায়ার সনদ, পরিবেশ ছাড়পত্র, বিএসটিআইয়ের সনদ ও ছাড়পত্রপ্রাপ্তি ও নবায়নে;
১৩. গ্যাসের বাণিজ্যিক ও শিল্প সংযোগপ্রাপ্তি ও বহাল এবং সিটি করপোরেশন এলাকায় আবাসিক গ্যাস সংযোগ প্রাপ্তি ও বহাল রাখতে;
১৪. লঞ্চ, স্টিমার, মাছ ধরার ট্রলার, কার্গো, কোস্টারসহ যেকোনো প্রকারের ভাড়ায় চালিত নৌযানের সার্ভে সনদপ্রাপ্তি ও বহালে;
১৫. পরিবেশ অধিদপ্তর বা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ইট উৎপাদনের অনুমতিপ্রাপ্তি ও নবায়নে;
১৬. সিটি করপোরেশন, জেলা সদর বা পৌরসভায় ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে শিশু বা পোষ্য ভর্তিতে;
১৭. সিটি করপোরেশন বা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এলাকায় বিদ্যুৎ–সংযোগপ্রাপ্তি বা বহালে;
১৮. কোম্পানির এজেন্সি বা ডিস্ট্রিবিউটর শিপ প্রাপ্তি ও বহালে;
১৯. আগ্নেয়াস্ত্রের সনদপ্রাপ্তি ও বহাল রাখতে;
২০. আমদানির উদ্দেশ্যে ঋণপত্র খোলায়;
২১. ডাকঘরে ৫ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়ী হিসাব খুলতে;
২২. ১০ লাখ টাকার বেশি মেয়াদি আমানত খোলা ও বহাল রাখতে;
২৩. ৫ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র ক্রয়ে;
২৪. পৌরসভা, উপজেলা, জেলা পরিষদ, সিটি করপোরেশন বা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণে;
২৫. মোটরযান, স্পেস বা স্থান, বাসস্থান অথবা অন্যান্য সম্পদ সরবরাহের মাধ্যমে অংশীদারি অর্থনৈতিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণে;
২৬. ব্যবস্থাপনা বা প্রশাসনিক বা উৎপাদন কার্যক্রমের তত্ত্বাবধানকারী পদমর্যাদায় কর্মরত ব্যক্তির বেতন-ভাতা প্রাপ্তিতে;
২৭. সরকারি কর্মচারীর বেতন-ভাতাপ্রাপ্তিতে;
২৮. মোবাইল ব্যাংকিয়ে টাকা স্থানান্তর এবং মোবাইল ফোনের রিচার্জে কমিশন, ফি বা অন্য কোনো অর্থপ্রাপ্তিতে;
২৯. উপদেষ্টা বা পরামর্শক সেবা, ক্যাটারিং সেবা, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সেবা, জনবল সরবরাহ, নিরাপত্তাকর্মী সরবরাহ সেবা বাবদ কোনো কোম্পানি হতে অর্থপ্রাপ্তিতে ;
৩০. এমপিওভুক্তির মাধ্যমে সরকারের কাছ থেকে মাসে ১৬ হাজার টাকার বেশি অর্থপ্রাপ্তিতে;
৩১. বিমা কোম্পানির এজেন্সি নিবন্ধন বা নবায়নে;
৩২. দ্বিচক্র বা ত্রিচক্র মোটরযান ছাড়া অন্যান্য মোটরযানের নিবন্ধন, মালিকানা পরিবর্তন বা ফিটনেস নবায়নে;
৩৩. এনজিওবিষয়ক ব্যুরোতে নিবন্ধিত এনজিও বা ক্ষুদ্রঋণ নিয়ন্ত্রক সংস্থার সনদপ্রাপ্ত ক্ষুদ্রঋণ সংস্থার অনুকূলে বিদেশি অনুদানের অর্থ ছাড়ে;
৩৪. ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে দেশে বসবাসকারী ভোক্তাদের কাছে পণ্য বা সেবা বিক্রয়ে;
৩৫. কোম্পানি ও সোসাইটি আইনে নিবন্ধিত কোনো ক্লাবের সদস্যপদের আবেদনে;
৩৬. পণ্য সরবরাহ, চুক্তি সম্পাদন বা সেবা সরবরাহের জন্য দরপত্র দাখিলকালে;
৩৭. কোনো কোম্পানি বা ফার্ম থেকে পণ্য বা সেবা গ্রহণে;
৩৮. পণ্য আমদানি বা রপ্তানির উদ্দেশ্যে বিল অব এন্ট্রি দাখিলে;
৩৯. রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক), চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ), খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কেডিএ), রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ), গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বা সিটি করপোরেশন বা পৌরসভার অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের জন্য ভবন তৈরির নকশা দাখিলে;
৪০. স্ট্যাম্প, কোর্ট ফি ও কার্ট্রিজ পেপারের ভেন্ডর বা দলিল লেখক হিসেবে নিবন্ধন ও সনদ বহাল রাখতে;
৪১. ট্রাস্ট, তহবিল, ফাউন্ডেশন, এনজিও, ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা, সোসাইটি এবং সমবায় সমিতির ব্যাংক হিসাব খোলা ও চালু রাখতে;
৪২. সিটি করপোরেশন এলাকায় কোনো ব্যক্তির বাড়িভাড়া বা লিজ গ্রহণকালে বাড়ির মালিকের ক্ষেত্রে;
৪৩. কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তির পক্ষ থেকে পণ্য বা সেবা সরবরাহে ওই সরবরাহকারী বা সেবা প্রদানকারীরক্ষেত্রে

বিষয়:
পরবর্তী খবর

উদ্যোক্তাদের ‘দক্ষতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ’ দিচ্ছে এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশ

এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশের আয়োজনে রাজধানীর টিকাটুলীতে অবস্থিত এফবিসিসিআই ইনোভেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার মিলনায়তনে শুরু হয়েছে দুই দিন ব্যাপী ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্যোক্তাদের জন্যে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ঋণ প্রস্তুতি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ।

বুধবার (১২ জুন) সকালে শুরু হওয়া এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে প্রথম ব্যাচে ২৫ জন উদ্যোক্তাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে। প্রথম দিন উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই ইনোভেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিকর্ণ কুমার ঘোষ।

প্রধান অতিথি তাঁর উদ্বোধনী বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশের ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হলে তাঁদের স্বপ্নটাকে বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। তাঁদের স্বপ্ন ছিল একটা সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। সেই লক্ষ্যে অসম্ভবকে সম্ভব করার সাহসীকতা নিয়ে কাজ করতে হবে। উদ্যোক্তাদের সেই সাহস আছে। তাদের সাহস, আত্মবিশ্বাস এবং প্রস্তুতি পারে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে। তিনি বলেন, যারা উদ্যোক্তা তারা ঝুঁকি নিতে জানে। ঝুঁকি নেওয়া ছাড়া বড় পরিবর্তন সম্ভব না। তাই চাকরিজীবীদের দিয়ে যে অগ্রগতি সম্ভব না, উদ্যোক্তাদের দিয়ে তা সম্ভব। বিকর্ণ কুমার ঘোষ উদ্যোক্তাদের যেকোনো প্রয়োজনে পাশে থাকার প্রত্যয় ঘোষণা দেন।

প্রথম দিনের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন নিজের বলার মতো একটা গল্প ফাউন্ডেশনের মডারেটর ও ঢাকা জেলা এম্বাসাডর হোসাইন আল মামুন এবং টার্টেল ভেঞ্চারের মেহেনাজ জামান।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্যোক্তাদের জন্যে দক্ষতা বৃদ্ধি এবং ঋণ প্রস্তুতি সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ কার্যক্রম তারা নিয়মিত পরিচালনা করবেন। প্রথম ব্যাচে এবার বাছাইকৃত পঁচিশজন উদ্যোক্তাকে সুযোগ দিতে পেরেছেন। ভবিষ্যতে আরও বেশি সংখ্যক উদ্যোক্তাকে এই প্রশিক্ষণের আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে। তাদের পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়েছে, উদ্যোক্তাদের জন্য বিনিয়োগ এবং লোন সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে সহজ করতে তারা কাজ করছেন।

এন্টারপ্রাইজ বাংলাদেশের এই আয়োজনে পার্টনার হিসেবে রয়েছে নিজের বলার মতো একটা গল্প ফাউন্ডেশন, টার্টেল ভেঞ্চার এবং দ্রুত লোন। আগামীকাল প্রথম ব্যাচের এই প্রশিক্ষণ শেষ হবে।

পরবর্তী খবর

১৮০৫ কেজি আম নিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাড়ল ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন

আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে চালু হলো আম পরিবহনের বিশেষ ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন। সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় প্রায় ১৮০৫ কেজি আম নিয়ে ছেড়ে যায় ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন। কম খরচে আম পরিবহনের বিষয়টি মাথায় রেখে বিগত বছরগুলোর ধারাবাহিকতায় ৫ম বারের মত আম পরিবহনের বিশেষ এ ট্রেন চালু করছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকা প্রতি কেজি আম পরিবহনে খরচ হবে ১ টাকা ৪৮ পয়সা।

সোমবার বিকাল ৫টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেল স্টেশনে ম্যাংগো ও ক্যাটেল ট্রেনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাছমিনা খাতুন, বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী আসাদুল হক, বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক শাহ সুফী নূর মোহাম্মদসহ অনান্যরা।

এর আগে সোমবার বিকাল ৪টায় রহনপুর স্টেশন থেকে ১০২০ কেজি আম নিয়ে যাত্রা শুরু করে ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন। এরপর নাচোল, আমনুরা জংশন হয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেল স্টেশনে আরো ৭৮৫ কেজি উঠানো হয়। পরে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে আম নিয়ে সন্ধ্যা ৬টায় রাজশাহীর উদ্দেশ্য ছেড়ে যায় ট্রেনটি।এরপর রাজশাহী, সরদহ রোড, আনাড়ী, আব্দুল্লাহপুর, ইশ্বরদী,পোড়াদহ, রাজবাড়ি, ফরিদপুর, ভাঙ্গা হয়ে পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে ঢাকায় পৌঁছাবে আমের এ বিশেষ ট্রেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেল স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মোহাম্মদ ওবাইদুল্লাহ জানান, এ ট্রেনে আম ছাড়াও শাকসবজি, ডিমসহ অনান্য কৃষি পণ্য পরিবহন করা যাবে। তিনি আরও জানান, আজ উদ্বোধন করা হলেও আগামী ১২ তারিখ থেকে তিনদিন ক্যাটেল স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত